Quantcast
  • বুধবার, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, ১২ অগাস্ট ২০২০

ইংল্যান্ডের চমৎকার জয়


সাতকাহন ডেস্ক | আপডেট: ১৬:৫৯, জুলাই ২১, ২০২০
 
 
 
 


বৃষ্টির বাধায় চারদিনে নেমে আসা ওল্ড ট্রাফোর্ড টেস্টে অসাধারণ এক জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে সমতা (১-১) ফেরাল ইংল্যান্ড।ম্যাচসেরা বেন স্টোকসের অলরাউন্ড নৈপুণ্য ও স্টুয়ার্ট ব্রডের দারুণ বোলিংয়ে সোমবার শেষদিনে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১১৩ রানে হারিয়েছে স্বাগতিকরা। চতুর্থ ইনিংসে ৩১২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৯৮ রানে গুটিয়ে যায় ক্যারিবীয়রা। শামারা ব্রুকস (৬২) ও জার্মেইন ব্ল্যাকউডের (৫৫) ফিফটির পরও ৮৫ ওভার টিকে থাকার চ্যালেঞ্জটা নিতে পারেনি উইন্ডিজ। ইংল্যান্ডের পক্ষে ব্রড তিনটি এবংক্রিস ওকস, ডম বেস ও স্টোকস দুটি করে উইকেট নেন। আগামী শুক্রবার একই ভেন্যুতে শুরু হবে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্ট।

আগের দিন আগুনে এক স্পেলে ১৪ বলের মধ্যে তিন উইকেট নিয়ে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিলেন ব্রড। কোনোমতে ফলোঅন এড়ানো ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম ইনিংস থামে ২৮৭ রানে। ১৮২ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করা ইংল্যান্ড দুই উইকেটে ৩৭ রান তুলে শেষ করেছিল চতুর্থদিন। সোমবার শেষদিনে বেন স্টোকসের ৫৭ বলে অপরাজিত ৭৮ রানের ঝড়ো ইনিংসের সুবাদে মাত্র ১১ ওভারেই ৯২ রান যোগ করে দ্রুত ইনিংস ঘোষণা করে স্বাগতিকরা। ইংল্যান্ডের রান তখন তিন উইকেটে ১২৯। সবমিলিয়ে লিড ৩১১ রানের। সিরিজে সমতা ফেরানো জয়ের জন্য ৮৫ ওভারের মধ্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে আরেকবার অলআউট করার চ্যালেঞ্জটা মোটেও সহজ ছিল না।কিন্তু আবারও আগুনে বোলিংয়ে ইংল্যান্ডের নাটকীয় জয়ের ভিত গড়ে দেন প্রথম টেস্টে একাদশে জায়গা না পাওয়া ব্রড। চতুর্থ ইনিংসে ৩১২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ব্রডের তোপের মুখে শুরুতে পথ হারানো ওয়েস্ট ইন্ডিজ টিকতে পারে ৭০.১ ওভার। প্রথম ওভারেই জন ক্যাম্পবেলকে ফিরিয়ে আঘাত হানা ব্রড লাঞ্চের ঠিক আগে দারুণ এক ডেলিভারিতে বোল্ড করেন শাই হোপকে। এর মাঝে ক্রেগ ব্রাফেটকে এলবিডব্ল–র ফাঁদে ফেলেন ক্রিস ওকস। লাঞ্চের পর ব্রডের তৃতীয় শিকারে পরিণত হন রোস্টন চেজ। মাত্র ৩৭ রানে চার উইকেট হারানো উইন্ডিজ পঞ্চম উইকেটে ব্রুকস ও ব্ল্যাকউডের শতরানের জুটিতে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। ব্ল্যাকউডকে ৫৫ রানে থামিয়ে স্টোকস এই জুটি ভাঙার পর ব্রুকসকে যা একটু সঙ্গ দিতে পেরেছেন জেসন হোল্ডার (৩৫)। তবে তাতে শেষ রক্ষা হয়নি।

প্রথম টেস্টে চার উইকেটে হেরে যাওয়ায় দ্বিতীয় টেস্ট জিতে সিরিজে সমতা ফেরানোর মরিয়া চেষ্টায় দ্বিতীয় ইনিংসে স্টোকসকে ওপেনিংয়ে পাঠিয়েছিল ইংল্যান্ড। পরিকল্পনাটা কাজে লেগেছে। টেস্টে প্রথমবারের মতো ওপেনিংয়ে নেমে রীতিমতো ঝড় তোলেন প্রথম ইনিংসে ১৭৬ রান করা স্টোকস। তার ৫৭ বলের টর্নেডো ইনিংসটি সাজানো চারটি চার ও তিন ছক্কায়। অধিনায়ক জো রুট ২২ রানে থামলেও ইনিংস ঘোষণার সময় স্টোকস অপরাজিত থাকেন ৭৮ রানে। পরে বল হাতেও দুই উইকেট নিয়ে দলের জয়ে বড় ভূমিকা রাখেন এই চ্যাম্পিয়ন অলরাউন্ডার।
সংক্ষিপ্ত স্কোর ইংল্যান্ড প্রথম ইনিংস ৪৬৯/৯ ডিক্লেয়ার।ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম ইনিংস ২৮৭।ইংল্যান্ড দ্বিতীয় ইনিংস ১২৯/৩ ডিক্লেয়ার (বেন স্টোকস ৭৮*, জ্যাক ক্রলি ১১, জো রুট ২২, অলি পোপ ১২*। কেমার রোচ ২/৩৭)।ওয়েস্ট ইন্ডিজ দ্বিতীয় ইনিংস ১৯৮ (ক্রেগ ব্রাফেট ১২, শামারা ব্রুকস ৬২, জার্মেইন ব্ল্যাকউড ৫৫, জেসন হোল্ডার ৩৫। স্টুয়ার্ট ব্রড ৩/৪২, ক্রিস ওকস ২/৩৪, ডম বেস ২/৫৯, বেন স্টোকস ২/৩০)।
ফল : ইংল্যান্ড ১১৩ রানে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : বেন স্টোকস (ইংল্যান্ড)।