Quantcast
  • বৃহস্পতিবার, ১০ আষাঢ় ১৪২৮, ২৪ জুন ২০২১

দুই লাখ টাকায় গাড়ি তৈরি করলেন টাঙ্গাইলের ফরিদ!


ইমরুল হাসান বাবু ,স্টাফ রিপোর্টার | আপডেট: ০৬:৪৭, মে ২৪, ২০২১
 
 
 
 


শুনে গল্প মনে হলেও বাস্তবিক রূপ দিয়েছে, নিজের হাতে সাইকেল তৈরির কথা শোনা গেছে, কিন্তু গাড়ি! তাও কি নিজে নিজে তৈরি সম্ভব? অবিশ্বাস্য মনে হলেও সেটা সম্ভব। মাত্র দুই লাখ ১০ হাজার টাকা ব্যয়ে জিপ গাড়ি তৈরি করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার আজগানা ইউনিয়নের মৃত বাছেদ সিকদারের ছেলে মো. ফরিদ সিকদার(৩৫)। তিনি জিপ গাড়িটি বাণিজ্যিকভাবে তৈরি করতে সরকারের অনুমতি ও সহযোগিতা চান।পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ছোট বেলা থেকেই ভিন্ন রকম চিন্তা ভাবনা ছিল ফরিদের। স্বপ্ন ছিল নিজ পায়ে দাঁড়িয়ে একদিন অনেক বড় হবে। অর্থের অভাবে লেখাপড়া তেমন করা সম্ভব হয়নি। তবুও সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশুনা করেছেন। ১৪ বছর বয়সে গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর বাস স্ট্যান্ড এলাকায় একটি ব্যাটারিচালিত অটো, গ্রিল ওয়ার্কশপের দোকানে কাজ শিখতে শুরু করেন। কয়েক বছর পর জমানো টাকা ও ধারদেনা করে আজগানা এলাকায় নিজেই একটি অটো গ্রিলওয়ার্কশপের দোকান দেন। কিছুদিন পর ব্যাটারিচালিত অটো কিনেন। অটোর বডি বিক্রি করে দেন। কিন্তু অটোর মেশিন, ৪টি চাকা, ব্যাটারি, প্রাইভেটকারের স্ট্রিয়ারিংসহ বিভিন্ন যন্ত্রপাতি দিয়ে মডিফাই করে প্রায় ১ মাস প্রচেষ্টার পর ড্রাইভারসহ ৬ ছিটের একটি অত্যাধুনিক জিপ গাড়ি তৈরি করেন। যার বিদ্যুৎ খরচ খুবই কম। প্রায় ৪০ কিলোমিটার বেগে যাবে এই গাড়িটি।ওয়ার্কশপ মিস্ত্রি ফরিদ সিকদার জানান, দেশের জন্য কিছু করতে চাই। অনেকের জিপ গাড়িতে চড়ার শখ থাকলেও টাকার অভাবে কিনতে পারেন না। তারা যেন অল্প টাকায় জিপ কেনার শখ পূরণ করতে পারেন সেজন্য এই ক্ষুদ্র প্রয়াস। এটি খুবই সাশ্রয়ী। সরকার যদি এগিয়ে আসে তাহলে দেশেই এই জিপ গাড়ি তৈরি সম্ভব। এটা বাণিজ্যিকভাবে বাজারজাত করাও সম্ভব।এ বিষয়ে উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম বলেন, ফরিদ নিজের প্রচেষ্টায় একটি জিপ গাড়ি তৈরি করে এলাকায় চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি করেছে। জিপগাড়ি দেখতে শতশত উৎসক জনতা ভীড় জমাচ্ছে। গাড়িটি দেখতে চমৎকার।