Quantcast
  • শুক্রবার, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৭, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১

বাইডেন যুগ শুরু


সাতকাহন ডেস্ক | আপডেট: ০৯:৪৭, জানুয়ারি ২১, ২০২১
 
 
 
 


অভিশপ্ত, অন্ধকার আর অপশাসনের সমাপ্তি ঘটিয়ে আলোর পথে ঝান্ডা ওড়ালেন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। নানা নাটকীয়তা শেষে সংবিধানসম্মতভাবেই ক্ষমতা গ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি করে জনপ্রিয়তায় একেবারে তলানিতে গিয়ে ইতিহাসের ধিকৃত প্রেসিডেন্ট হিসেবে  হোয়াইট হাউস ছেড়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এরপর গতকাল বুধবার সকালে (বাংলাদেশ সময় গত রাত ১০টা ৪৮ মিনিট)  প্রধান বিচারপতি জন রবার্টসের কাছে শপথ নেন জো বাইডেন। বিচারপতি সোনিয়া সটোমাইয়র কাছে শপথ নেন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস। এভাবেই ট্রাম্পের পর শুরু হয় বাইডেন যুগ।শপথ গ্রহণ শেষে ২২ মিনিটের অভিষেক ভাষণে বাইডেন বলেন, ‘এটা আমেরিকার দিন। এটা গণতন্ত্রের দিন। ইতিহাস এবং আশারএকটি দিন। আমরা আবারও গণতন্ত্রের মূল্য অনুধাবন করতে পেরেছি। গণতন্ত্র ভঙ্গুর এবং এই মুহূর্ত থেকে আমার বন্ধুরা, সর্বত্র গণতন্ত্র বিরাজমান। এখন থেকে পবিত্র এই ভূমিতে, যেখানে কয়েকদিন আগে ক্যাপিটলে তান্ডব হয়েছে যেখানে এক জাতি হিসেবে আমাদের আবার একত্রিত হতে হবে। ঐক্যবদ্ধ যুক্তরাষ্ট্র গড়তে হবে। হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে সব নাগরিকের প্রেসিডেন্ট হতে চাই।’ করোনার তান্ডবে আগে থেকেই ক্ষমতা গ্রহণের সীমিত পরিসরের এ অনুষ্ঠানকে জঙ্গি হামলার আশঙ্কায় আরও স্বল্পপরিসরে করতে হয়েছে। হাজারখানেক অতিথির (যার অর্ধেকই কংগ্রেসের মেম্বার) উপস্থিতিতে মধ্যদুপুরের অনুষ্ঠানের নিরাপত্তায় ছিল ন্যাশনাল গার্ডের ২৫ হাজার সদস্য ছাড়াও সেনাবাহিনীর নিয়মিত সাড়ে সাত শ সৈনিক এবং ওয়াশিংটন ডিসি ও ক্যাপিটল হিলের ৫ সহস্রাধিক নিরাপত্তারক্ষী। অর্থাৎ টানটান উত্তেজনায় নিন্ডিদ্র নিরাপত্তায় এ শপথ গ্রহণের অনুষ্ঠানে সাবেক তিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, জর্জ বুশ ও বিল ক্লিনটন থাকলেও ছিলেন না বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে তাঁর ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স ছিলেন সরব। ট্রাম্পের অবান্তর ভোট ডাকাতির অভিযোগ পাত্তা না দিয়ে ৬ জানুয়ারি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই ভাইস প্রেসিডেন্ট ইলেকটোরাল কলেজের ভোট সার্টিফাই করতে যেমন সাহসী ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন, একইভাবে ট্রাম্পের হোয়াইট হাউস ত্যাগের সময়ও তাঁকে বিদায় অভিবাদন জানাতে না গিয়ে বাইডেনের অভিষেক সমাবেশে এসেছিলেন। আর এভাবেই রিপাবলিকান পার্টিতে নিজের ভবিষ্যৎ সংহত করার ক্ষেত্রে তিনি একধাপ এগিয়ে গেলেন বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।